করোনার বুস্টার ডোজের বিষয়ে ভাবা উচিত: ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ

আওয়াজবিডি ডেস্ক
২৩ নভেম্বর ২০২১, রাত ৯:৪২ সময়

আজ মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর একটি হোটেলে ‘কোভিড ১৯ বর্তমান পরিস্থিতি’ শীর্ষক সেমিনার শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের তিনি এসব কথা বলেন।

ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, ‘ইউরোপিয়ান দেশগুলোতে করোনা বেড়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে জার্মান, ইউকে, রাশিয়াতে বেশি হচ্ছে। আমেরিকাতেও আক্রান্তের হার বেড়ে যাচ্ছে। সেই সঙ্গে দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। সেই হিসেবে আমরা বলতে পারি, আমাদের সংক্রমণের হার অনেক কম। মৃত্যুর সংখ্যাও কম। তবে একটা মানুষও মারা যাক, এটা আমরা চাই না। আমরা ভালো আছি এটা সত্য, এই ভেবে যেন, আত্মতৃপ্তিতে না ভোগেন। করোনা কখন বাড়ে, কখন কমে কেউ বলতে পারবে না। রাশিয়া ভ্যাকসিন আবিষ্কার করেছে। ৭০ থেকে ৮০ ভাগ লোক ভ্যাকসিনের আওতায় এসেছে। তারপরও সেখানে করোনা নিয়ন্ত্রণ হচ্ছে না।’

করোনা থেকে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে এই মেডিসিন বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘যেকোনো সময় করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়ে যেতে পারে। করোনা থেকে বাঁচার দুটো রাস্তা, এটা হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি মানা, আরেকটা হচ্ছে টিকা দেওয়া।’

বুস্টার ডোজের বিষয়ে এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, 'পৃথিবীর অনেক দেশে দুই ডোজ টিকা দেওয়ার পর বুস্টার ডোজ দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে যাদের বয়স বেশি এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তাদের বুস্টার ডোজ দেওয়া হচ্ছে। আমাদের দেশে ভবিষ্যতে দেবে, এটা নিয়ে কথা বার্তা আলোচনা চলছে।'

ইব্রাহিম/আওয়াজবিডি/ইউএস

মুনাফা বেড়েছে আরামিটের, লোকসান বেড়েছে সিমেন্টের

আওয়াজবিডি ডেস্ক
৩০ নভেম্বর ২০২১, দুপুর ১০:৪৭ সময়

মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে আরামিট লিমিটেডের শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) ৭০ শতাংশ বেড়েছে। কোম্পানিটির জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৪ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে হয়েছিল ৬৭ পয়সা।

অর্থাৎ গত বছরের চেয়ে কোম্পানিটির মুনাফা বেড়েছে ৪৭ পয়সা বা ৭০ শতাংশ। তাতে গত ৩০ সেপ্টেম্বর সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৯২ টাকা ৫৩ পয়সায়।

তবে হতাশার চিত্র দেখা গেছে একই গ্রুপের অপর কোম্পানি আরামিট সিমেন্ট লিমিটেডের আর্থিক প্রতিবেদনে। চলতি অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান বেড়েছে ৪৮ শতাংশ।

ডিএসইর তথ্য মতে, গত জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে শেয়ারপ্রতি কোম্পানিটির লোকসান হয়েছে ১ টাকা ৯৬ পয়সা। যা গত অর্থবছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছিল ১ টাকা ৩২ পয়সা। অর্থাৎ কোম্পানিটির লোকসান হয়েছে ৬৪ পয়সা বা ৪৮ শতাংশ। ২০২১ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৭ টাকা ১৯ পয়সা।

ইব্রাহিম/আওয়াজবিডি/ইউএস