যুক্তরাষ্ট্রে মহামারি আকার নিয়েছে মাদক সেবন, এক বছরে লক্ষাধিক মৃত্যু

উত্তর আমেরিকা অফিস
১৪ মে ২০২২, সকাল ৪:১৩ সময়

মার্কিন স্বাস্থ্য খাত নিয়ে কাজ করা ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (সিডিসি) ধারণা অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে বেশি মাত্রায় মাদক নেয়া এক ধরনের মহামারিতে পরিণত হয়েছে এবং এ কারণে আরো একটি দুঃখজনক রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। বুধবার মার্কিন সংস্থাটির পক্ষ থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সিডিসির অনুমান মোতাবেক ২০২১ সালের তুলনায় এ বছর মৃত্যুর হার ১৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিভিন্ন ব্যক্তির ‘ডেথ সার্টিফিকেট’ পর্যালোচনা করে সংস্থাটি তাদের প্রতিবেদনে এমন মন্তব্য করেছে। খবর আল জাজিরার

মাদকের অপব্যবহারের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. নোরা ভলকো বলেন, বেশি মাত্রায় মাদক গ্রহণ করে অসংখ্য ব্যক্তির মৃত্যুর বিষয়টি সত্যিই বিস্ময়কর।

এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দফতর হোয়াইট হাউজ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে মাত্রাতিরিক্ত মাদক গ্রহণের জন্য যেভাবে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে তা অগ্রহণযোগ্য। জাতীয় পর্যায়ে মাদকের অপব্যবহার রোধ করতে একটি কৌশলও অবলম্বন করার কথা জানিয়েছে মার্কিন প্রশাসন। মৃত্যুর সংখ্যা কমাতে আরো বেশি সংখ্যক মাদকাসক্ত ব্যক্তিকে চিকিৎসা দেয়ার জন্যও আহ্বান জানিয়েছে হোয়াইট হাউজ। এছাড়া মাদক পাচার ব্যাহত করা এবং মাদকের ওভারডোজ সংক্রান্ত চিকিৎসার ক্ষেত্রে ন্যালোক্সোন ওষুধ ব্যবহার প্রসারিত করার বিষয়ে বলা হয়েছে।

২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মাদকের ওভারডোজের কারণে মৃত্যুর সংখ্যা ব্যাপক হারে বেড়েছে। ১৯৯০ সাল থেকে আফিমের তৈরি ব্যথানাশক ওষুধের (বা মাদকের) মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার শুরু হয়েছিল। এরপর আফিম থেকে প্রস্তুত হেরোইন ও অন্যান্য মাদক ব্যবহার শুরু হয়। অতি সম্প্রতি – অবৈধ ফেন্টানাইল ও আফিমজাত মাদক বেশি মাত্রায় গ্রহণ করার কারণে যুক্তরাষ্ট্রে বিপুল সংখ্যক মানুষের মৃত্যু হচ্ছে।

গত বছর, ফেন্টানাইল ও অন্যান্য সিনথেটিক আফিমজাত মাদক অতিরিক্ত মাত্রায় ব্যবহারের কারণে ৭১ হাজারের বেশি মার্কিন নাগরিক মারা গেছেন, যা আগের বছরের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি। কোকেনের কারণে মৃত্যুর হার বেড়েছে ২৩ শতাংশ। এছাড়া মেথ ও অন্যান্য (তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টিকারী) মাদকের কারণে মৃত্যুর হার বেড়েছে ৩৪ শতাংশ।

প্রজ্ঞাপন জারি

পদ্মা সেতুতে টোল: মোটরসাইকেল ১০০, বাস ২৪০০

অনলাইন ডেস্ক
১৭ মে ২০২২, রাত ১১:০৬ সময়
ছবি- সংগৃহীত

এতে মোটরসাইকেলের জন্য ১০০ এবং ৩ এক্সেলের বাসের জন্য ২ হাজার ৪০০ টাকা টোল নির্ধারণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ মে) সেতু বিভাগের উপসচিব আবুল হাসান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপন থেকে এ তথ্য জানা যায়।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, মোটরসাইেকলের জন্য টোলের হার ১০০ টাকা; কার, জিপ ৭৫০ টাকা; পিকআপ ভ্যান ১ হাজার ২০০ টাকা; মাইক্রোবাস ১ হাজার ৩০০ টাকা; ছোট বাস (৩১ আসন বা তার কম) ১ হাজার ৪০০ টাকা; মাঝারি বাস (৩২ আসন বা তার বেশি) ২ হাজার টাকা; বড় বাস (৩ এক্সেল) ২ হাজার ৪০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া ছোট ট্রাকের জন্য (৫ টন পর্যন্ত) ১ হাজার ৬০০ টাকা; মাঝারি ট্রাক (৫ থেকে ৮ টন পর্যন্ত) ২ হাজার ১০০ টাকা; মাঝারি ট্রাক (৮ থেকে ১১ টন পর্যন্ত) ২ হাজার ৮০০ টাকা; বড় ট্রাক (৩ এক্সেল পর্যন্ত) ৫ হাজার ৫০০ টাকা; ট্রেইলার (৪ এক্সেল পর্যন্ত) ৬ হাজার টাকা এবং ট্রেইলার (৪ এক্সেলের অধিক) ৬ হাজার টাকার সঙ্গে প্রতি এক্সেলের জন্য ১ হাজার ৫০০ টাকা যুক্ত হবে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, টোলের এ হার পদ্মা সেতুতে যানবাহন চলাচলের দিন থেকে কার্যকর হবে।

এর আগে ফেরিতে টোল ছিল, মোটরসাইকেলে ৭০ টাকা, কার বা জিপে ৫০০ টাকা, পিকআপ ভ্যানে ৮০০ টাকা, মাইক্রোবাসে ৮৬০ টাকা, ছোট বাসে ৯৫০ টাকা, মাঝারি বাসে এক হাজার ৩৫০ টাকা, বড় বাসে এক হাজার ৫৮০ টাকা, ৫ টন পর্যন্ত ট্রাকে এক হাজার ৮০ টাকা, ৫ থেকে ৮ টন পর্যন্ত ট্রাকে এক হাজার ৪০০ টাকা, ৮ থেকে ১১ টন পর্যন্ত ট্রাকে এক হাজার ৮৫০ টাকা ও ৩ এক্সেলের ট্রাকে ৩ হাজার ৯৪০ টাকা।

অনি/আওয়াজবিডি/ইউএস