কর্ণফুলীতে ইউপি নির্বাচন

আ.লীগের মনোনয়ন পেয়ে যুবলীগ নেতা বলছেন, তিনি প্রার্থী নন

আওয়াজবিডি ডেস্ক
১৪ মে ২০২২, দুপুর ১১:৪৬ সময়
যুবলীগ নেতা আলাউদ্দিন —ফাইল ফটো

তবে আলাউদ্দিন বলছেন, তিনি প্রার্থী নন, ভুল করে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের তালিকায় তার নাম আসতে পারে।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে গণভবনে স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভা হয়। সেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে অষ্টম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১৪০ ইউপিতে নৌকা প্রতীকের দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়, যার মধ্যে কর্ণফুলীর চরপাথরঘাটা ইউপিও রয়েছে। গতকাল রাতে দলের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করা হয়।

এদিকে, গতকাল রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে চরপাথরঘাটা ইউপির প্রার্থী হিসেবে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম হকের নাম ছড়িয়ে পড়ে। তখন নেতা-কর্মীরা তাকে অভিনন্দনও জানান। কিন্তু দিবাগত রাত একটার সময় আওয়ামী লীগের ফেসবুক পেজে সারা দেশের প্রার্থীতালিকা ঘোষণা করা হলে সেখানে আলাউদ্দিনের নাম দেখা যায়।

আলাউদ্দিনের নাম প্রকাশ হওয়ার পর তিনি নিজেই ফেসবুকে পোস্ট করেন। লেখেন, ‘কেউ বিভ্রান্তি হওয়ার কিছু নেই। প্রিন্টিংয়ে ভুল হয়েছে, নৌকার মাঝি প্রিয় ভাই সেলিম হক।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলীও তার ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে লেখেন, ‘বিভ্রান্ত হওয়ার কোনো কারণ নেই, টাইপিং মিসটেক, মুহাম্মদ সেলিম হক নৌকার মাঝি।’

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে আজ শনিবার সকাল নয়টায় আলাউদ্দিন বলেন, ‘আমি নই, সেলিম হকই নৌকার প্রার্থী হবেন। হয়তো ভুলবশত আমার নাম এসেছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি দল থেকে ফরমও সংগ্রহ করিনি, জমাও দিইনি।’

ইউপি নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী, ১৬ মে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। বাছাই ১৯ মে। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ২৬ মে, প্রতীক বরাদ্দ ২৭ মে। আগামী ১৫ জুন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

ইব্রাহিম/আওয়াজবিডি/ইউএস

শ্রীলঙ্কায় গ্রেফতার দুই এমপি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৭ মে ২০২২, রাত ১১:৫৬ সময়

এ খবর দিয়েছে অনলাইন সিলন টুডে। এতে বলা হয়, সনৎ নিশান্থকে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সিআইডির আরেকটি সূত্র এমপি মিলানকে গ্রেপ্তারের তথ্য নিশ্চিত করেছে।

গত সপ্তাহে সোমবার সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে হামলা চালানোর সঙ্গে তারা জড়িত বলে অভিযোগ আছে। ওই হামলার পর বিক্ষোভ সহিংসতায় রূপ নেয়। হামলা-পাল্টা হামলা চলতে থাকে।

বেশ কয়েকজন মন্ত্রী, এমপির বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে উত্তেজিত জনতা। এক পর্যায়ে পদত্যাগ করা সাবেক প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দ রাজাপাকসে তার বাসভবন থেকে পালিয়ে যান। সহিংসতায় নিহত হন কমপক্ষে ৯ জন।

অনি/আওয়াজবিডি/ইউএস