মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কারা আশ্রয় পাওয়ার যোগ্য?

আওয়াজবিডি ডেস্ক
৩ জুলাই ২০২২, রাত ৩:৫৩ সময়

করোনা মহামারি চলাকালীন শিরোনাম-৪২ নামে পরিচিত একটি জরুরি ব্যবস্থার কারণে যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে আশ্রয় প্রক্রিয়া আংশিকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। তবে কিছু অভিবাসীকে আশ্রয় নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে।

যদিও একজন ফেডারেল বিচারক বাইডেন প্রশাসনকে আপাতত শিরোনাম- ৪২ তুলে নেওয়া থেকে বিরত রেখেছেন।

মার্কিন আশ্রয় ব্যবস্থা বছরের পর বছর ধরে যে চ্যালেঞ্জগুলোর মুখোমুখি হয়েছে সেগুলো হলো- আবেদনের বিশাল ব্যাকলগ এবং বছরের পর বছর ধরে প্রক্রিয়াকরণের সময়, অসঙ্গত নীতি এবং অপারেশনাল সীমাবদ্ধতা। এগুলো এখনো অব্যহত রয়েছে।

বাইডেন প্রশাসন সম্প্রতি একটি নিয়ম প্রয়োগ করা শুরু করেছে। আশা করা হচ্ছে যে, এর প্রয়োগ শুরু হলে আশ্রয় ব্যবস্থার সংস্কার করবে এবং মামলা প্রক্রিয়াকরণকে ত্বরান্বিত করবে।

তবে নীতিটি সীমিত আকারে শুরু হবে এবং অপারেশনাল চ্যালেঞ্জ, মহামারি, রেকর্ড অভিবাসী গ্রেফতার এবং রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন মামলার প্রেক্ষিতে এর সাফল্য কতটুকু আসবে তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে।

কে মার্কিন আশ্রয়ের জন্য যোগ্য?

কয়েক দশক ধরে মার্কিন আইন সরকারকে অভিবাসীদের আশ্রয় দেওয়ার অনুমতি দিয়েছে যারা তাদের জাতীয়তা, জাতি, ধর্ম, রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি বা একটি “বিশেষ সামাজিক গোষ্ঠীর” সদস্য হওয়ার কারণে নিজ দেশে নিপীড়নের শিকার হয়েছেন বা আতঙ্কে রয়েছেন তারা আশ্রয়ের যোগ্য।

নিপীড়ন অবশ্যই সরকারি কর্তৃপক্ষ বা এমন কারো কাছ থেকে আসতে হবে যা নিজ দেশ নিয়ন্ত্রণ করতে অক্ষম। দারিদ্র্য, দুষ্প্রাপ্য অর্থনৈতিক সুযোগ, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে বাস্তুচ্যুত বা পরিবারের সাথে পুনরায় মিলিত হওয়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আশ্রয় আবেদন গ্রহণ করে না।

অন্যদিকে, কেবলমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে থাকা ব্যক্তিরাই আশ্রয়ের জন্য যোগ্য। কিছু ব্যতিক্রম বাদে, মার্কিন আইন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসীদের থাকার অনুমতি দেয় যারা বেআইনিভাবে দেশটিতে প্রবেশ করেছে।

ওয়াশিংটন পোস্টের খবর

ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধে রাশিয়ার ৭০-৮০ হাজার সেনা হতাহত: দাবি পেন্টাগনের

অনলাইন ডেস্ক
১০ আগস্ট ২০২২, রাত ১:৪৩ সময়

এর মধ্যে মাস ছয়েকের এই যুদ্ধে রাশিয়ার ৭০ থেকে ৮০ হাজার সেনা হতাহত হয়েছে বলে দাবি করেছে পেন্টাগন। অন্যদিকে, ইউক্রেনের সেনাবাহিনীর দাবি, এ পর্যন্ত তাদের ৪২ হাজার ২০০ সেনার মৃত্যু হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সদর দফতর পেন্টাগনের শীর্ষ কর্মকর্তা কলিন কাল গতকাল সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি করেন।

তিনি বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধে রুশ সেনাবাহিনীর হতাহতের সংখ্যা আসলে কত, তা নিয়ে ধোঁয়াশা থাকলেও অন্তত ৭০-৮০ হাজার সেনা হতাহত হয়েছেন। তার দাবি, হতাহতের সঠিক সংখ্যা কমবেশি হতে পারে। তবে অন্তত এই সংখ্যক সেনাকে হারিয়েছে রাশিয়া।

পেন্টাগনের ওই কর্তার দাবি, সেনাবাহিনীর পাশাপাশি চার কোটিরও বেশি ইউক্রেনীয় নাগরিকের বিরুদ্ধেও লড়তে হচ্ছে রাশিয়াকে। অন্যদিকে, আমেরিকাসহ বহু দেশের কাছ থেকে সামরিক সাহায্য পাচ্ছে ইউক্রেন। 

সূত্র : ওয়াশিংটন পোস্ট