বেটউইনারের বাজি

কে জিতবে—সাকিব না বিসিবি

আওয়াজবিডি ডেস্ক
৭ আগস্ট ২০২২, দুপুর ১০:৩০ সময়
সাকিব আল হাসান —ফাইল ফটো

কাল রাতে প্রশ্নটা যেন নিজেকেই নিজে করলেন বিসিবির এক কর্মকর্তা। মুঠোফোনের এ প্রান্ত থেকে কিছু শোনার অপেক্ষা না করে উত্তরটাও নিজেই দিয়ে দিলেন, ‘অবশ্যই জানত। ও তো না জেনে, না বুঝে কিছু করার ছেলে নয়!’

এমন মন্তব্যে সন্দেহের একটা অব্যক্ত প্রকাশ থাকে। তার মানে বিতর্ক তৈরি হবে জেনেও সাকিব চুক্তি করেছেন! কিন্তু তিনি যদি জানতেনই যে বেটিং–সংশ্লিষ্ট একটা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করলে প্রশ্নের সম্মুখীন হবেন, তাহলে সেটা কেন করলেন?

কেন করলেন, তা গত দু-তিন দিনে সাকিবের সঙ্গে যোগাযোগেই বিসিবি মোটামুটি ধরতে পারছে। কারণ, বিষয়টি আলোচনায় আসার পরও নাকি সাকিব বিসিবিকে বোঝাতে চেয়েছেন, বেটউইনার নিউজের সঙ্গে তার চুক্তি আইনগতভাবে এবং নীতিগতভাবেও অনুচিত কিছু নয়। কারণ, বেটউইনার নিউজ একটি সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইট মাত্র। এর সঙ্গে বেটিং বা জুয়ার সম্পর্ক নেই। কাজেই এই চুক্তি করে দেশের আইন বা বিসিবির আচরণবিধি—কোনোটাই তিনি ভঙ্গ করেননি।

হতে পারে সাকিবের এজেন্টও তাকে এভাবেই বুঝিয়েছেন। কিন্তু আন্তর্জাতিক ও ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের অলিগলি তো কম চেনেন না সাকিব। বুঝে হোক, না বুঝে হোক, নিষিদ্ধ পথেও তো চলে গিয়েছিলেন একবার। কাজেই কোন সঙ্গে সর্বনাশ, সেটি তিনি বোঝেন না বললে রামগড়ুরের ছানাও হেসে দিতে পারে। এজেন্টের দেখানো পথ যে কাটা বিছানো, সেটি জেনেই সাকিব সে পথে পা রেখেছেন বলে অন্তত বিসিবির ধারণা। ‘বেটিং’ যদি না–ও হয়, সাকিব হয়তো এটাকে ‘ব্যাটিং’ ভেবেছেন। ব্যাটিংয়ের মতোই খেলে ফেলবেন একটা ঝুঁকিপূর্ণ শট। ঠিকঠাক লেগে গেলেই তো ছক্কা!

তবে আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে না সাকিবের সেই ‘ঝুঁকিপূর্ণ শট’ বাউন্ডারি অতিক্রম করবে। সেখানে ক্যাচ নিতে বিসিবির কড়া প্রহরা। বিসিবি সভাপতি আগেই কঠিন কণ্ঠে বলেছেন, এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সাকিবের চুক্তি তারা মানবেন না। গত দুই দিনে সেই সিদ্ধান্ত আরও পোক্ত হয়ে এখন এ পর্যায়ে যে সাকিবের ই–মেইল ঠিকানায় একটি কড়া চিঠি এই গেল বলে। সেখানে স্পষ্ট লেখা থাকবে, বেটউইনার নিউজের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে আসো।

কিন্তু সাকিব যদি তাতে সাড়া না দেন, তখন কী হবে? তিনি তো নাকি এরই মধ্যে বিসিবিকে বোঝানোর চেষ্টা শুরু করেছেন, তিনি যে প্রতিষ্ঠানের পণ্যদূত হয়েছেন, সেটি বেটিংয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। বেটউইনার নিউজের ওয়েবসাইটে ঢুকেও প্রথমেই লাল হরফে লেখা ঘোষণাটি চোখে পড়ল কাল। এটি কেবলই একটি খেলাধুলার সংবাদ ওয়েবসাইট। কেউ যদি বেটিংয়ের উদ্দেশে তাতে ঢুকে থাকেন, তার আশায় গুড়ে বালি। তারা যেন অনতিবিলম্বে সাইট ত্যাগ করেন।

সমস্যা এখানেই। একটি সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইটকে ঘোষণা দিয়ে বলতে হচ্ছে, ‘আমরা কিন্তু বেটিং-ফেটিং করি না।’ কেন? কারণ, তাদের মূল ওয়েবসাইট বেটউইনারের ব্র্যান্ড পরিচয়ই হলো বেটিং ওয়েবসাইট হিসেবে, যার মাধ্যমে বাজি ধরা যায় এবং অনলাইন ক্যাসিনো খেলা যায়। বাংলাদেশের আইনগত ও সামাজিক বাস্তবতায় দুটোই নিষিদ্ধের পর্যায়ে। বেটউইনার নিউজ সেই ওয়েবসাইটের ভগ্নিসাইট বলেই সংশয়ের বাতাবরণ। তাদের সঙ্গে নিজেকে জড়িয়ে সাকিব আবারও বিতর্কের কেন্দ্রে। বিসিবি চায় তিনি এখান থেকে সরে আসুন।

কিন্তু চুক্তি হয়ে যাওয়ার পর আইনগতভাবে সাকিবের তা থেকে সরে আসার সুযোগ রয়েছে কি না, সেটি দেখার বিষয়। সাকিব যদি কাগজপত্রে দেখাতে পারেন যে বেটউইনার নিউজের সঙ্গে তার চুক্তি দেশের আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয় বা এতে বিসিবির আচরণবিধিও ভঙ্গ হয়নি, তাহলে কি বিসিবি তাকে বাধ্য করতে পারবে চুক্তি থেকে সরে আসতে? আর সরে এলে যদি সাকিবকে উল্টো বেটউইনার নিউজের সঙ্গে চুক্তির শর্ত ভঙ্গের অভিযোগে পড়তে হয়, সেই ঝুঁকি কি তিনি নেবেন?

এ প্রশ্নে বিসিবিও একটু দ্বিধান্বিত। বেটউইনার নিউজের সঙ্গে সাকিবের চুক্তির আইনগত দিকগুলো তাই খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সমান্তরালে বিসিবি এ স্লোগানও তুলছে, আইনকানুন যা–ই থাকুক, নীতিগতভাবেই এ রকম প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গাটছড়া বাধা সাকিবের ঠিক হয়নি। দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আইকন তিনি। ক্রিকেটের আন্তর্জাতিক আকাশে বাংলাদেশের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র। তার কত ভক্ত, কত অনুসারী। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের পথপ্রদর্শক হয়ে সাকিব তাদের কী দেখাচ্ছেন? কী উদাহরণ রেখে যাচ্ছেন? অর্থই কি সব!

সমস্যা হলো, আইন এক জিনিস আর নীতিকথা আরেক জিনিস। এখানে যদি আইনের ফাক থেকে থাকে, সাকিবকে নৈতিকতার শৃঙ্খলে আটকানো কঠিন হবে বিসিবির জন্যও। কারণটা তারাও জানে। সাকিব না জেনে কিছু করার লোক নন। সাকিব কাটাযুক্ত পথে পা বাড়িয়েছেন পথে কাটা আছে জেনেই। ঝুকিপূর্ণ শটটা খেলেছেন ক্যাচের কথা মাথায় রেখেই।

এখন দেখা যাক বাউন্ডারির প্রহরী বিসিবি সেই ক্যাচ নেয় কি না। সামনে এশিয়া কাপ টি-টোয়েন্টি এবং টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। জোরালো গুঞ্জন, সাকিব দুটোতেই বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন। কিন্তু তার আগে বেটউইনারের ব্যাট হাতে তিনি যে বিতর্কের খানাখন্দ তৈরি করলেন, সেটি ভরাট হওয়া প্রয়োজন। সাকিব ভরাট করলে তো হলোই, নয়তো দায়িত্বটা বিসিবির কাধেই বর্তাবে।

সাকিবের তারকাদ্যুতিতে যদি তাদের চোখও ঝলসে যায়, তাহলে অবশ্য ভিন্ন কথা। বেটউইনারের বাজিতে তখন হেরে যাবে বাংলাদেশের ক্রিকেট। বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আইকন বলেই যে সাকিবের ব্যাপারে কঠোর হতে গেলে অদৃশ্য হাত কলার টেনে ধরে বিসিবির!

ইব্রাহিম/আওয়াজবিডি/ইউএস

দেশে পা রেখেই গ্রেফতার লামিচানে

প্রথম আলো
৬ অক্টোবর ২০২২, রাত ৮:২৯ সময়
গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির এক মাস পর দেশে ফিরেছেন নেপালের ক্রিকেটার সন্দীপ লামিচানে —ছবি: এএফপি

কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের পরপরই তাকে আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।

এএফপিকে তার আটকের খবর নিশ্চিত করেছেন কাঠমান্ডু ডিস্ট্রিক পুলিশের মুখপাত্র দিনেশ রাজ মৈনালি।

লামিচানের দেশে ফেরার বিষয়ে খোজখবর রাখতে কাঠমান্ডু পুলিশের বিশেষ কিছু করতে হয়নি। এক ফেসবুক বার্তায় দেশে ফেরার ঘোষণা দিয়েছিলেন লামিচানেই। কোন ফ্লাইটে, কখন কাঠমান্ডুতে পৌঁছাবেন, সেটাও তিনি সেই বার্তায় জানিয়েছিলেন।

ফেসবুক বার্তায় একই সঙ্গে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন লামিচানে।

‘ষড়যন্ত্রমূলক মামলা’য় আইনি লড়াই চালিয়ে আবারও ক্রিকেট মাঠে ফেরার প্রত্যয় জানিয়েছেন ২২ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।

লামিচানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা করেছিলেন ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরী। মামলার সময় সিপিএল টি–টোয়েন্টি খেলতে ক্যারিবিয়ানে ছিলেন তিনি।

দুই দিন পর কাঠমান্ডুর একটি আদালত লামিচানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এ ঘটনায় নেপাল ক্রিকেট বোর্ড (সিএএন) তাকে জাতীয় দলের অধিনায়কের পদ থেকে সরিয়ে দেয়। বাদ পড়েন সিপিএল থেকেও।

তাকে দেশে ফেরাতে গত মাসের শেষ সপ্তাহে ইন্টারপোলের সাহায্য নেয় নেপালের পুলিশ। ইন্টারপোল পরোয়ানা জারির ১০ দিনের মাথায় দেশে ফিরলেন নেপালের এই ক্রিকেটার।

আত্মপক্ষ সমর্থন করে লামিচানে ফেসবুক পোস্টে লেখেন, ‘জনসাধারণের সমর্থন ও সমালোচনামূলক মন্তব্যকে আমি প্রেরণা ও শক্তি হিসেবে নিচ্ছি।

জানি, আমি এখন ষড়যন্ত্র এবং অন্যায় অভিযোগের একটি কঠিন সময়ের মুখোমুখি হয়েছি এবং এর প্রভাব অকল্পনীয় কিছু।

আমি নিশ্চিত যে আমাদের আইনি ব্যবস্থায় নির্দোষ প্রমাণিত অভিযুক্ত ব্যক্তিদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কিছু ব্যবস্থা অবশ্যই থাকবে। আমি শিগগিরই আমার বিরুদ্ধে করা অন্যায় মামলা এবং অভিযোগের বিরুদ্ধে আইনি সহায়তা চাইব।

আমি নিশ্চিত যে আমি ন্যায়বিচার পাব এবং আমার প্রিয় দেশের নাম ও খ্যাতি কুড়াতে শিগগিরই ক্রিকেটের মাঠে ফিরে আসব।’

মাঠে ফিরতে দ্রুত বিচারের প্রত্যাশাও করেছেন তিনি।

লেগ স্পিনার হিসেবে খ্যাতি কুড়ানো লামিচানে নিয়মিত ফ্রাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টেও খেলেন। সিপিএলের আগে ভারতের আইপিএল, অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশেও খেলেছেন।

ইব্রাহিম/আওয়াজবিডি/ইউএস